মুজিবনগর উপজেলা প্রাণিসম্পদ হাসপাতালে হয়রানির অভিযোগ

ছবি

এম চোখ ডটকম মুজিবনগর: মুজিবনগর উপজেলা প্রাণিসম্পদ  ও ভেটেনারি হাসপাতালে হয়রানির যেনো অন্ত নেই,  খামারী ও গবাদী পশুর মালিকগন অসুস্থ গরু _ ছাগলের চিকিৎসা নিতে এসে প্রতিনিয়ত বিভিন্ন ধরনের হয়রানি ও  অপেক্ষার শিকার হচ্ছেন । দীর্ঘক্ষণ অপেক্ষা করেও মিলছেনা সুচিকিৎসা ,অফিস খোলা থাকলেও নেই কোনো কর্মকর্তা ।  দীর্ঘ অপেক্ষার প্রহর গুনে  রোগাক্রান্ত গরু ছাগল নিয়ে ফিরে যেতে হচ্ছে চিকিৎসা নিতে আসা খামারি ও অসুস্থ গবাদী পশু মালিকগনদের। মুজিবনগর ভবরপাড়া থেকে চিকিৎসা নিতে আসা আল আমিন হোসেন বলেন আমি সকাল ৯টায়  গরু নিয়ে এই ভেটেরিনারি হাসপাতালে এসেছি । এখানে এসে দেখি আমার গরুর চিকিৎসা দেওয়ার জন্য কোন ডাক্টার বা কোন কর্মকর্তা নেই অফিসে ডুকে দেখি একজন কেরানী ও একজন কম্পিউটারে অফিসিয়াল কাজ করছে, পুরো অফিসে মাত্র দুই জন কর্মচারী, তাঁদের কাছে  আমার গরুর সমস্যার কথা বলি জবাবে তাঁরা বলেন অপেক্ষা করেন ডাক্টার আসলে চিকিৎসা প্রদান করা হবে। দীর্ঘক্ষন অপেক্ষার পর বেলা এগারোটার দিকে দুজন ব্যক্তি অফিসে প্রবেশ করেন, তখন আমরা উনাদের কাছে গিয়ে গরুর সমস্যার কথা বললে তাড়াহুড়ো করে এসে গরু দেখে চলে যায় । আল আমিন হোসেন আরো বলেন স্বাধীনতার সূতিকাগার মুজিবনগরের মত স্থানে যদি এই ধরনের অবস্থা হয় তাহলে অন্যান্য জায়গায় কি অবস্থা হচ্ছে  এই বিষয়ে আমি অনেক সন্ধিহান সেজন্য ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তার দৃষ্টি আকর্ষণ করেছেন তিনি । এই বিষয়ে মুজিবনগর উপজেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা কাজী নজরুল ইসলামের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন আমি শারীরিক অসুস্থ থাকার কারণে ১১ টার একটু আগে অফিসে এসেছি  । অন্যান্য কর্মকর্তা ও স্টাফদের বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি জানান , তাঁরা কেনো সময় মতো অফিসে  আসেনি সে বিষয়ে আমি দেখছি । তিনি আরো জানান রাজস্ব খাতের মোট ৪ জন কর্মকর্তা এই অফিসে বিভিন্ন পদে কর্মরত আছেন এনএটিপি ২ প্রকল্পের একজন ডাক্তার ছিলেন তিনি বদলি হয়ে অন্য জায়গায় চলে গেছে আরেকজন এলডিডিপি প্রকল্প ডক্টর তানিয়া আক্তার মাতৃত্বকালীন ছুটিতে আছেন । এজন্যই হয়তো একটু সমস্যা হচ্ছে ‌ ।